সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের উদ্যোগে চা শ্রমীকদের মধ্যে শীত বস্ত্র বিতরণ

বাংলার দিন ডেস্ক:ছাত্র ফ্রন্টের একজন কর্মী বনানী দে রিমি’র মায়ের রোগ মুক্তি কামনায় বেশ কিছু টাকা মন্দিরে দেওয়ার কথা ভাবছিলেন পরিবারের সদস্যরা। সেই টাকাটা সে তার পরিবারের মানুষকে বুঝিয়ে আমাদের তহবিলে প্রদান করে।

এমন অনেক গল্প ও কথার মালা গেঁথে গেঁথে পক্ষকাল ধরে মানুষের মানবিক বোধ জাগিয়ে তুলে অর্থ সংগ্রহের মাধ্যমে সভাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট মৌলভীবাজার জেলা ২৭ ডিসেম্বর বিকেল ৩ টায় জুড়ী উপজেলাস্থ ধামাই চা বাগানের দূর্গা মন্দিরে প্রায় ৩০০ মানুষের মধ্যে শিতের কম্বল ও সোয়েটার বিতরণ করে।

এ সময় এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট মৌলভীবাজার জেলার সংগঠক তোফায়েল আহমদ ফাহিম। সভা পরিচালনা করেন সৈকত দাশ নিমো। সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হৃদেশ মোদি, প্রগতিশীল রাজনৈতিক কর্মী এডভোকেট রনেন সরকার রনি, বাসদ (মার্কসবাদী) মৌলভীবাজার জেলা সংগঠক অনিক চন্দ, সুদীপ্ত চক্রবর্তী, ধামাই চা বাগানের পঞ্চায়েত সভাপতি যাদব রুদ্র পাল সহ মৌলভীবাজার ও জুড়ীর নেতা-কর্মীবৃন্দ।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে আলোচকবৃন্দ বলেন, যে সময় দেশের প্রধান প্রধান ছাত্র সংগঠন গুলো হল দখল, সীট দখল, টেন্ডারবাজী, চাঁদাবাজী সহ নানা ধরনের অপ কর্মের জড়িত তখন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট শীতার্থ মানুষের প্রতি তাদের এই দ্বায়বদ্ধতা দেখিয়ে মনুষ্যত্ব ও মূল্যবোধের যে পরিচয় দিয়েছে তা বর্তমান এই ব্যক্তিস্বার্থবাদী ও আত্মকেন্দ্রিক সমাজে বিরল। আজকে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নেতা কর্মীরা যে দায়িত্ব পালন করেছেন এই দায়িত্ব ছিলো রাষ্ট্রের কিন্তু রাষ্ট্র সেই দায়িত্ব পালন করেনি শিতার্থ মানুষের নুন্যতম অধিকার থেকেও এ দেশের শ্রমজীবী মানুষ বঞ্চিত। এমতাবস্থায় শ্রমজীবী মানুষ তথা এদেশের শ্রমিক কৃষক মেহনতী মানুষের রাষ্ট্র ব্যবস্থা কায়েমের জন্য শ্রমজীবী মানুষকেই এগিয়ে আসতে হবে।