মৌলভীবাজার সরকারি কলেজে ফুটপাত ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ছাত্রনেতা জাকের এর ফেসবুক স্ট্যাটাস

বাংলার দিন ডেস্কঃ  সরকারি কলেজে ফুটপাত ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ছাত্রনেতা জাকের এর ফেসবুক স্ট্যাটাস

মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের সকল বিভাগের শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণ ! আশাকরি সবাই মনোযোগ সহকারে পড়বেন। কলেজের সামনে ফুটপাত ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নিয়ে কিছু কথা!

প্রিয় শিক্ষার্থী ভাই ও বোনেরা।
আপনারা জানেন, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের উন্নয়নের লক্ষে আমি সব-মিলিয়ে ১৫ দফা দাবির উত্থাপক।

পাশাপাশি যখনই কলেজের সমস্যা, শিক্ষকদের সমস্যা, সর্বোপরি সবার প্রিয় শ্রদ্ধেয় ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক আবু হানিফ স্যার এর বদলি ঠেকাতে তখনকার এমপি, বর্তমান মেয়র সহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দের কাছে অনেক লবিং-তদবির করি।

এছাড়া সমস্ত জেলার শিক্ষার্থীদের দ্বৈত বর্ধিত ফি প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলন করি যেটা ছিল সারা বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম আন্দোলন যার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জরিমানার টাকা শেষের দিকে এসে মওকুফ করে।

তাছাড়া কলেজের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া পূরণের জন্য শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের জন্য আমি লাগাতার আন্দোলন সংগ্রাম করে যাচ্ছি।

এমনকি কলেজে কোন শিক্ষার্থী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হলে অথবা হয়রানির শিকার হলে আমি তাৎক্ষণিকভাবে মানববন্ধন এর আয়োজন করি যা এখনো অব্যাহত আছে।

আপনারা যাতে বিভ্রান্তিতে না পড়েন, এজন্য দু’একটি কথা না লিখে পারলাম না!

আপনারা জানেন আমার অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে কলেজের সামনে ফুটপাতের কাজ শুরু হয়েছে, যাতে আপনারা নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে পারেন। আপনাদের সুবিধার কথা চিন্তা করে আমি কলেজ প্রশাসনের কাছে কাছে অনুরোধ করে এই কাজটি বাস্তবায়ন করেছিলাম। যার কাজ বর্তমানে চলমান। পাশাপাশি কলেজের সামনে নতুন আধুনিক ফটক এবং দেয়াল করার জন্য শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আমি অধ্যক্ষ স্যারের কাছে অনুরোধ করলে উনি শিক্ষার্থীদের জন্য আমার অনুরোধ রাখেন।

২০১৭ সালে, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের সাবেক সফল অধ্যক্ষ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আমার পরম শ্রদ্ধেয় প্রফেসর সৈয়দ মহিবুল ইসলাম স্যারের কাছে আমার বিভিন্ন দাবির মধ্যে অভ্যন্তরীণ দাবি ছিল সিসি ক্যামেরা স্থাপন ও ফুটপাত নির্মাণ।

স্যার অবসরকালীন সময় স্বল্পতার কারণে ফুটপাতের কাজ শেষ করে যেতে পারেননি, সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেছিলেন।

পরবর্তীতে দায়িত্ব গ্রহণ করেন মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ উন্নয়নের রূপকার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আমার পরম শ্রদ্ধেয় প্রফেসর ডঃ ফজলুল আলী স্যার।

বর্তমান অধ্যক্ষ স্যারের সাথে আমি কথা বলি ফুটপাত নির্মাণ করার জন্য। স্যার কে বলি শিক্ষার্থীরা কলেজের সামনে দিয়ে যাতায়াত করতে সমস্যা হয়, অনেক সময় তাদের উপর দিয়ে গাড়ি চলে যায়, অনেক সময় গাড়ির ধাক্কায় অনেক শিক্ষার্থী আহত হয়। স্যার আপনি দয়া করে কলেজের সামনে ফুটপাত নির্মাণের জন্য দেয়াল ভাঙ্গার অনুমতি দেন, স্যার এই বিষয়ে আমি আমার মামাতো ভাই মেয়র ফজলুর রহমান এর সাথে কথা বলেছি, যাতে তিনি ফুটপাত করে দেন।

তখনই স্যার আমাকে বলেছিলেন এতে আমার কোন আপত্তি নেই, শিক্ষার্থীদের কল্যাণে আমি সব করব।

জজ কোর্ট কর্তৃপক্ষ ফুটপাতের জায়গা দিলে আমার কোন আপত্তি নাই। পরবর্তীতে পৌরসভার জননন্দিত মাননীয় মেয়র আমার ভাই আলহাজ্ব মোঃ ফজলুর রহমান এর নেতৃত্বে ফুটপাতের কাজ চালু হয়। এবং বর্তমানে চলমান আছে।

তবে কিছুদিন পূর্বে জজ কোর্ট ক্যান্টিনের সামনে ফুটপাতের কাজ বন্ধ ছিল যে কোন এক কারণে। এমনিতেই কোর্ট প্রশাসন দিয়ে দিত। তবুও যারা এ নিয়ে কষ্ট করেছেন,পরিশ্রম করেছেন তাদেরকে আমি ধন্যবাদ জানাই।

সংগ্রহঃ  মানবিক ছাত্রনেতা, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাকের আহমদ (অপু) এর ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেয়া।