কৃষি এখন ভদ্র মানুষের পেশা: কৃষিমন্ত্রী

বাংলার দিন ডেস্ক: কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, কৃষি এখন সম্মানজনক ও ভদ্র মানুষের পেশা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।শনিবার রাজধানীর কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের অডিটরিয়ামে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।বাংলাদেশ একাডেমি অব এগ্রিকালচারের (বাগ) আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইমেরিটাস সায়েন্টিস্ট ও বাগের প্রেসিডেন্ট কৃষিবিদ ড. কাজী এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং সঞ্চালনা করেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক মো. হামিদুর রহমান।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, এক সময় দেশের মানুষ তাদের ন্যূনতম চাহিদা মিটাতে হাহাকার করত। কিন্তু আজ মাছ, মাংস, দুধ, ডিমসহ নানারকমের পুষ্টিকর সবজি ও ফল উৎপাদনে দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ।কৃষি কর্মকর্দারের উদ্দেশে তিনি বলেন, কর্মকর্তাদের কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তাসহ উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখতে হবে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অনেক উদ্যোক্তা রয়েছেন যাদের পৃষ্ঠপোষকতা দিলে এগিয়ে যেতে পারবেন। তাদের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা দেয়া হবে।

গবেষকদের উদ্দেশে কৃষিমন্ত্রী বলেন, গবেষণার মান বাড়াতে হবে। পাশাপাশি পিএইচডিতে কোর্স ওয়ার্ক থাকতে হবে। বাংলাদেশ একাডেমি অব এগ্রিকালচারকে শক্তিশালী করতে হবে। এর জন্য সরকার সহযোগিতা করবে।

পরে বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সাবেক সভাপতি প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের সাবেক মহাপরিচালক এবং ইউনিভার্সিটি অব গ্লোবাল ভিলেজের ভিসি ড. মো. জাহাঙ্গীর আলমের লেখা ‘কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন: নীতি, অর্থায়ন ও কৌশল’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন কৃষিমন্ত্রী।

এ ছাড়া কৃষিতে অনবদ্ধ ভূমিকা রাখার জন্য ৩ জনকে স্বর্ণপদক ও ৪ জনকে ‘ক্রেস্ট অব মেরিট’ পুরস্কার দেয়া হয়।