কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশন সরেজমিনে পরিদর্শণে প্রতিনিধি দল

আবদুল আহাদ: কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনে সরেজমিনে পরিদর্শণ করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল।

৯ মার্চ সোমবার দুপুরে রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক নাসির উদ্দিন আহমদ ও পরিদর্শক (জিআইবিআর) অসীম কুমার তালুকদার এর নেতৃত্বে এ প্রতিনিধি দল পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের গাফলতিতে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। লোকো শেডে নিয়মিত ট্রেনের ইঞ্জিন চেকিং না করায় সংশ্লিষ্ট ইনচার্জকে সর্তক করেন। টিকেট কালোবাজারির সাথে কেউ জড়িত থাকলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

এছাড়াও রেলওয়ে হাসপাতাল, প্লাটফরম, রেলওয়ের আইডব্লিউ, পিডব্লিউর বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শণ করেন। পরিদর্শণ শেষে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন শীর্ষকর্তারা। এসময় স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীরা ১৫টি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা তুলে ধরেন। আর তা হলো- কুলাউড়া জংশন থেকে সিলেট-ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে চলাচলকারী সকল ট্রেনের আসনসংখ্যা বৃদ্ধি, স্টেশনের আধুনিকায়ন, কুলাউড়ার জন্য আলাদা কোচ বৃদ্ধি, ট্রেনের প্রতিটি বগিতে বর্ণমালার সংযুক্তিকরণ, যাত্রীদের জন্য বিশ্রামাগারে বন্ধ থাকা বাথরুম সংস্কার, প্লাটফরমের বাথরুমের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ থেকে মুক্তি, পানীয় জলের ব্যবস্থা, টিকেট কালোবাজারি বন্ধ, কর্মকর্তাদের অনিয়ম ও দায়িত্বে অবহেলা, গণশৌচাগার স্থাপন, স্টেশনের প্রবেশমুখে অবৈধভাবে টোল আদায় বন্ধ ও ইজারা বাতিল, পরিত্যাক্ত কোয়ার্টারে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ, পরিত্যক্ত কোয়ার্টারের অবৈধ ভাড়া ও বসবাসরতদের উচ্ছেদ, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, ট্রেনের সময়সূচির জন্য ডিজিটাল ডিসপ্লে স্থাপন, রেলওয়ে হাসপাতালে সেবা চালুকরণের উদ্যোগ, রেলওয়ে রিক্রিয়েশন ক্লাব সংস্কার, পাবলিক সচেতনতার জন্য প্লাটফরমসহ আঙ্গিনা পরিস্কার, বন্ধ স্টেশন চালু এবং সম্প্রতি বন্ধ হওয়া কয়েকটি লোকাল ট্রেন চালু।

এসময় গণমাধ্যকর্মীদের আশ^স্থ করে বাংলাদেশ রেলওয়ের পরিদর্শক (জিআইবিআর) অসীম কুমার তালুকদার বলেন, পরিদর্শনের সকল প্রতিবেদনের সাথে আপনাদের উত্থাপিত সমস্যাগুলো গুরুত্ব সহকারে রেলমন্ত্রণালয় ও সরকারের উচ্চপর্যায়ে জানানো হবে। বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক নাসির উদ্দিন আহমদ জানান, রেলওয়ের উন্নয়নে অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কিছু প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। যার সুফল পাবেন রেলযাত্রীরা।

কুলাউড়া স্টেশনে কোন অবস্থায় যাতে টিকেট কালোবাজারি না হয় সেজন্য স্টেশন মাষ্টারকে নির্দেশ দেন। এছাড়া রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কেউ টিকেট কালোবাজারির সাথে জড়িত থাকলে সোজা জেলে ঢুকিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন রেলওয়ে থানার ওসিকে। ছবিক্যাপশন- কুলাউড়া রেল স্টেশনের সমস্যা সমাধানের দাবিতে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপকের কাছে স্মারকলিপি তুলে দিচ্ছেন গণমাধ্যমকর্মীরা