কাজ ছাড়াই পুরো মাসের বেতন পেলেন ‘বিলাস’ এর ২৫০ কর্মচারী

 

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃকরোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)-এর প্রভাবে বন্ধ সকল দোকানপাট, শপিংমল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এ অবস্থায় কর্মহীন দোকানের কর্মচারীরা।দোকান বন্ধ, ব্যবসা নেই, কাজও বন্ধ। তবুও পুরো মাসের বেতন পেলেন মৌলভীবাজার ‘বিলাস’ কোম্পানির ২৫০ জন কর্মচারী। শুধু পুরো মাসের বেতন নয়, দ্বিতীয় দফায় পেয়েছেন পবিত্র রমজানের উপহার হিসেবে ইত্যাদি খাদ্য সামগ্রী।বিলাস কর্তৃপক্ষ জানান- মাসখানেক আগে দোকানপাট বন্ধ করার সময় ১৫ দিনের বেতন দিয়ে দেওয়া হয়। এবার দ্বিতীয় দফায় আরো পনের দিনের বেতনসহ খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট দিয়েছে জেলার অন্যতম জনপ্রিয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘বিলাস’।
বিনা কাজে ঘরে থেকে বেতন পেয়ে আবেগাপ্লুত বিলাসের কর্মচারীরা।
মঞ্জু সরকার নামে এক কর্মচারী তার ফেসবুকে মালিকের উদ্দেশ্যে লিখেন- ‘এই (COVID-19) এর কারণে আমাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ, আপনার কোটি কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে। তারপরও আপনি বিনা পরিশ্রমে আমাদের মাসিক বেতন দিয়েছেন। আপনার তুলনা হয় না ভাই, আপনি মহান।

বিপদ আপদে সবসব সময় আমাদের অভিভাবক হিসেবে পাশে ছিলেন। এই দুর্যোগের কালেও আপনি আমাদের খাদ্য সামগ্রী দিয়ে পাশে আছেন, আপনার কাছে আমরা চির কৃতজ্ঞ। প্রাণভরে দুহাত তুলে ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি ঈশ্বর আপনাদেরকে সবসময় রোগমুক্ত রাখেন, দীর্ঘায়ু করেন ও এই প্রতিষ্ঠান আরও উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যান।আপনি চিন্তা করবেন না ভাই,,, এই মহামারি’র পরে আমরা দ্বিগুণ পরিশ্রমের মাধ্যমে আপনার লোকসান পূরণ করার যথাসাধ্য চেষ্টা করব। আপনিও আমাদের জন্য দোয়া করবেন যাতে আমরা এই মহামারী হাত থেকে বাঁচতে পারি। ভালো থাকবেন।’এ ব্যাপারে বিলাসের সত্ত্বাধিকারী সুমন আহমদ  বলেন, ‘আমরা খুব মানবিক দৃষ্টিতে বিষয়টি দেখছি। যদিও আমাদের ব্যবসায়িক ও আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তবুও কর্মচারীদের পুরো মাসের বেতন দিয়েছি। সাথে খাদ্য সামগ্রীও দেওয়া হয়েছে। তারা তো আর অনাহারে থাকতে পারেনা। আমরা কর্মচারীদের পাশে সবসময় আছি।’অন্যান্য ব্যবসায়ীদেরও কর্মচারীদের পাশে থাকার আহ্বান জানান সুমন আহমদ। পাশাপাশি কর্মহীন নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্য সহায়তা দিয়ে মানিবক সহযোগিতা করার জন্য বিত্তবানদের অনুরোধ জানান এই ব্যবসায়ী।