বড়লেখায় ৫০৩টি মসজিদ পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান

এ.জে লাভলু, বড়লেখা :: মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় মসজিদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে অনুদানের তালিকা থেকে ৫১২টি মসজিদের মধ্যে ৯টি’র নাম বাদ দেওয়া হয়েছে। অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় যাচাই-বাছাই করে তালিকা থেকে এগুলোর নাম বাদ দেওয়া হয়। ফলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দের চেক এখন ৫০৩টি মসজিদ পাচ্ছে।ইতিমধ্যে সুষ্ঠুভাবে প্রায় ৪০০টি মসজিদে অনুদানের চেক কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এতে মসজিদ কমিটির লোকজন প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। এদিকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাদপড়া ১৫৬টি মসজিদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে অতিরিক্ত বরাদ্দের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক বরাবরে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ মে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বড়লেখা উপজেলার ৫১২টি মসজিদের জন্য ৫ হাজার টাকা করে ২৫ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার চেক বরাদ্দ হয়। গত ২৩ মে বড়লেখা উপজেলা প্রশাসনের ফেসবুক পেজ থেকে ৫১২টি মসজিদের নামের তালিকা ও বরাদ্দের বিষয়টি প্রকাশ করা হয়। আর এতেই অনিয়মের বিষয়টি ধরা পড়ে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক প্রস্তুতকৃত ওই তালিকা ঘেঁটে দেখা যায়, তালিকায় একই মসজিদের নাম দুবার অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। তালিকায় এমন অনেক মসজিদের নাম অন্তর্ভূক্ত করা হয়, বাস্তবে যেগুলোর কোনো অস্তিত্বই খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমনকি গণশিক্ষাকেন্দ্রকে মসজিদ দেখিয়ে অনুদারে টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ ওঠে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর উপহারের তালিকায় নিজেদের এলাকার মসজিদের নাম না থাকায় কয়েকটি এলাকার লোকজনের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দেয়। এ নিয়ে তারা ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করে তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। গণশিক্ষাকেন্দ্রকে মসজিদ দেখিয়ে অনুদানের টাকা আত্মসাতের চেষ্টায় এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান পুনরায় তালিকা যাচাই-বাছাই করেন। যাচাই-বাছাইকালে অনিয়ম থাকায় নয়টি মসজিদের নাম তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়। ফলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দের চেক এখন ৫০৩টি মসজিদে দেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে অনুদানের চেক প্রায় ৪০০টি মসজিদ কমিটির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি মসজিদগুলোতে পর্যায়ক্রমে অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হচ্ছে। ইসলামী ফাউন্ডেশন বড়লেখার সুপারভাইজার মো. আব্দুল বারী শনিবার (০৬ জুন) বিকেলে মুঠোফোনে বলেন, দ্রুত তালিকা করতে গিয়ে ভুলক্রমে একই নাম একাধিকবার এবং গণশিক্ষা কেন্দ্রের নাম মসজিদের তালিকায় চলে এসেছে। যাছাই-বাছাই করে সেগুলোকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান শনিবার (০৬ জুন) বিকেলে জানান, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের তালিকায় অনিয়মের অভিযোগে পুনরায় যাচাই-বাছাই করা হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন তালিকাটি প্রস্তুত করেছিল। তালিকায় ৫১২টি মসজিদের নামের বিপরীতে যাচাই-বাছাই করে ৫০৩ টি মসজিদের নাম সঠিক পাওয়া যায়। বাকি নয়টির নাম তালিকায় দুবার এবং কয়েকটির মসজিদের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। ফলে সেগুলোকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এখন ৫০৩টি মসজিদ কমিটির অনুকুলে ক্রসড চেকের মাধ্যমে অনুদান বিতরণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ৪০০টি মসজিদের চেক হস্তান্তর করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকি মসজিদগুলোর চেক হস্তান্তর করা হবে। এছাড়া তালিকা থেকে বাদপড়া ১৫৬টি মসজিদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে অতিরিক্ত বরাদ্দের জন্য পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।