বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের পরিচালক হিসেবে নাজিয়া শিরিনের পদায়ন

স্টাফ রিপোর্টারঃ আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের পরিচালক হিসাবে, মৌলভীবাজার এর জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিনকে পদায়ন করা হয়।  তাকে আজ এই পদে পদায়ন করে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

 

নাজিয়া শিরিন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক হিসেবে কর্মরত ছিলেন । তিনি বাগেরহাট জেলার মেয়ে এবং ২০ তম বিসিএস (প্রশাস) এর একজন ক্যাডার কর্মকর্তা । মৌলভীবাজারের ইতিহাসের প্রথম একজন নারী জেলা প্রশাসক হিসেবে মানুষের মন জয় করে নিয়েছেলেন ।

 

বিশেষ করে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বা মোকাবিলায় অন্যান জেলার চেয়ে মৌলভীবাজার জেলাকে বেশি সুরক্ষিত রেখেছেন । চা শিল্পের সিংহভাগ চা বাগান মৌলভীবাজার জেলায়, চা শিল্পের আর্থিক ক্ষতি না হওয়ার জন্য চা বাগানে লকডাউন না করে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চা শ্রমিকদের কাজ অব্যাহত রাখেন ।

 

করোনা আক্রান্তের ভয় ছেড়ে এ সময়ে তিনি জীবনের মায়া তুচ্ছে করে মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন, সরকারের প্রতিটি নির্দেশনা বাস্তবায়নে তিনি এবং তাহার প্রশাসনের কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক মাঠ পর্যায়ে সরব থাকেন। দ্রব্য মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সার্বক্ষণিক বাজার মনিটরিং ও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ রাখতে, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের সহকারী পরিচালক ও নির্বাহী ম্যাজেস্ট্রেটদের মাধ্যমে বাজার তদারকি অব্যাহত রাখেন।

 

কর্মহীন হতদরিদ্র ও মধ্যবিত্তের পরিবারে      প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ সামগ্রী বা উপহার সামগ্রী পৌঁছিয়ে দিতে সক্ষম হন। তাঁর প্রখর দৃষ্টির কারণে সুবিধা বঞ্চিত চা শ্রমিক এবং আদিবাসীরাও উন্নয়নের ছোঁয়া লাভ করেছে । জনকল্যাণমুখী উন্নয়ন কাজে তিনি সাধারন মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। এ জেলায় পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটিছেন, নতুন নতুন পর্যটন এলাকা চিহ্নিত করে পর্যটকদের আকর্ষিত করতে উন্নয়ন কাজ শুরু করেন।

 

হাওড় উন্নয়ন ও হাওড়ের বিভিন্ন স্থানকে পর্যটন এলাকা হিসেবে রূপান্তরিত করেন। মৌলভীবাজার জেলায় বিভিন্ন স্থানে বঙ্গবন্ধুর মোরাল স্থাপনে তিনি সক্ষম হয়েছেন, বঙ্গবন্ধুর শতবর্ষ উদযাপন এর ব্যায়াপক প্রস্তুতি নিলেও করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতিকে অনুকূলে রাখেনি। সর্বপরি তিনি একজন দক্ষ প্রশাসক হিসেবে তাহার প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারী দক্ষতার সাথে প্রশাসনিক কাজ সম্পাদন করতেন।